Afroza Sultana

মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী

বাংলাদেশের মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক
(১৭ জুলাই, ২০১৮ থেকে বর্তমান)

বাংলাদেশের দ্বাদশ মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী তার সুদীর্ঘ ৩৩ বছরের বর্নাঢ্য চাকুরী জীবনে একজন সফল ব্যক্তিত্ব হিসেবে সুপরিচিত।

বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস নিরীক্ষা ও হিসাব ক্যাডারের ১৯৮৪ ব্যাচের সদস্য জনাব মুসলিম চৌধুরীর সরকারি আর্থিক প্রশাসন ও ব্যবস্থাপনায় জ্ঞান অত্যন্ত গভীর ও ব্যপ্ত।

২০১৮ সালের ১৭ জুলাই মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রকের দায়িত্ব নেয়ার পূর্বে তিনি অর্থ সচিবের দায়িত্ব পালন করেন। অর্থ সচিবের পূর্বে তিনি অর্থ বিভাগের উপসচিব, যুগ্ম সচিব ও অতিরিক্ত সচিবের দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়াও তিনি মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক, হিসাব মহানিয়ন্ত্রক এবং কন্ট্রোলার জেনারেল ডিফেন্স ফাইনান্স দপ্তরের নানা পদে কাজ করেছেন।

তিনি যুক্তরাজ্যের বার্মিংহাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফিন্যান্স ও অ্যাকাউন্টিংএ মাস্টার অব সাইন্স (এমএসসি) ডিগ্রি অর্জন করেন। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে হিসাব বিজ্ঞানে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। সিভিল সার্ভিসের দীর্ঘ ও বর্নাঢ্য ক্যারিয়ারে তিনি সরকারি অর্থ ব্যবস্থাপনার সংস্কার কাজে অগ্রনী ভুমিকা পালন করেন এবং যার দরুন সরকারি সেবা প্রদান প্রক্রিয়ার উন্নতির স্বীকৃতি স্বরুপ তিনি জনপ্রশাসন পদক, ২০১৭ তে ভূষিত হন। আর্থিক ক্ষেত্রে ই-গভর্নেন্স প্রর্বতনে তিনি ছিলেন অত্যন্ত দৃঢ়। আই এফ এম আই এস (আইবাস++) এর উন্নয়ন ও বাস্তবায়নে নিজেকে সক্রিয় রেখেছেন। সরকারি পেনশনার ডেটাবেজ ও সরকারি কর্মচারী ডেটাবেজ প্রণয়নে তিনি অগ্রণী ভুমিকা পালন করেছেন যা সরকারি পেনশন ও বেতন প্রদান ব্যবস্থাপনায় শৃঙ্খলা আনয়ন ভূমিকা রাখে।

বাংলাদেশের পিপিপি কাঠামো প্রনয়ন ও বাস্তবায়নে তিনি সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন, এমনকি পিপিপি কৌশল ও নীতি প্রণয়নে তার অবদান অনস্বীকার্য। সরকারি নানা পরিকল্পনা, বাজেটিং এবং হিসাব ব্যবস্থাপনায় ২০১৮-১৯ অর্থ বছর হতে নতুন বাজেট ও হিসাব শ্রেনিবিন্যাস পদ্ধতি (বিএসিএস) প্রনয়ন প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করনে ও তার ভূমিকা ছিল মুখ্য।

একজন কনসালট্যান্ট হিসেবে তিনি বিশ্বব্যাংক ও ডিএফআইডি এর যৌথ অর্থায়নকৃত প্রকল্পে পিএফএম সংস্কার কার্যক্রমে জড়িত ছিলেন। তিনি পরিচালক হিসেবে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক, সোনালী ব্যাংক লিমিটেড, বাংলাদেশ বিমান, তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিটিশন ও ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেড, ইস্টার্ন রি্ফাইনারি লিমিটেড এবং ঢাকা বিআরটি কোম্পানী লিমিটেডের পরিচালনা পর্ষদের সদস্য ছিলেন। তিনি আইসিএমএবি ও ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনের কাউন্সিল সদস্য ছিলেন। সরকারি মালিকানাধীন দেশের বৃহত্তম অব-কাঠামোগত অর্থসংস্থান কোম্পানী বিআইএফএফএল এর প্রথম ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সার্ক উন্নয়ন তহবিলের পরিচালনা পর্ষদের একজন সম্মানিত সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ভ্রমনের অভিজ্ঞতা সম্পন্ন জনাব চৌধুরী যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, বেলজিয়াম, ডেনমার্ক, ফ্রান্স, নেদারল্যান্ড, সুইডেন, ভারত, পাকিস্তান, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, শ্রীলংকা, কম্বোডিয়া, নেপাল, জাপান, ভুটান, সিঙ্গাপুর, ফিলিপাইন, সৌদি-আরব, সংযুক্ত আরব-আমিরাত, চিন, হংকং, মিয়ানমার, কেনিয়া, মরক্কো, পেরু, জার্মনি, অস্ট্রিয়া, ফিজি, অস্ট্রেলিয়া, থাইল্যান্ড, কুয়েত, ভিয়েতনাম, রাশিয়া এবং ইথিওপিয়া ভ্রমন করেছেন।

তিনি চট্টগ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহন করেন। ব্যক্তিগত জীবনে পেশায় শিক্ষিকা মিসেস সাবিনা হক এর সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ। তারা দুই কন্যা সন্তানের গর্বিত পিতা-মাতা।




  • ফোন:
    +৮৮০২-৪১০৩০২৯০
    +৮৮০২-৪১০৩০২৯৬

  • হিসাব ভবন (৪র্থ তলা)
    সেগুনবাগিচা, ঢাকা-১০০০
    খোলা (সকাল ০৯.০০-বিকেল ০৫.০০)

© ২০২১ চিফ একাউন্টস এন্ড ফিন্যান্স অফিসারের কার্যালয়, পেনশন ও ফান্ড ম্যানেজমেন্ট, সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত।